-->

ইফতারের সময়সূচি ২০২৪ | সেহরির শেষ সময় ২০২৪

ইফতারের সময়সূচি ২০২৪ | সেহরির শেষ সময় ২০২৪

রমজান খুবই বরকতময় একটি মাস। এই মাসে প্রত্যেকটি মুসলমানের উপর রোজা রাখা ফরজ। তাই সকল মুসলমানগণ রোজা রাখার জন্য ইফতারের এবং সেহরির সময় জানতে চান। সেহেরির শেষ সময় এবং ইফতারের সময়সূচি সম্পর্কে ধারণা রাখা খুবই জরুরী।

কারণ সঠিক সময় না জানলে আপনার রোজা সঠিক নাও হতে পারে। চাঁদ দেখা সাপেক্ষে ১২ই মার্চ থেকে প্রথম রোজা রাখার তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। সেই সাথে বাংলাদেশ ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকে ইফতারের এবং সেহেরীর সময়সূচী নির্ধারণ করা হয়েছে। 

এই পোষ্টের মাধ্যমে আমরা ইফতারের সময়সূচি ২০২৪ এবং সেহেরির শেষ সময় সম্পর্কে বিস্তারিত জানবো। যারা ইফতারের সঠিক সময় জানতে চান তারা অবশ্যই আমাদের পোস্টটি মনোযোগ সহকারে শেষ পর্যন্ত পড়বেন। 

ইফতারের সময়সূচি ২০২৪

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে ১২ মার্চ থেকে প্রথম রোজা রাখার সিদ্ধান্ত করা হয়েছে। অর্থাৎ ১১ তারিখ রাত্রে যদি আকাশে চাঁদ দেখা যায় তাহলে রমজান মাস শুরু হয়ে যাবে। রাতে আকাশে চাঁদ দেখার পর সবাই তারাবির নামাজ আদায় করবে এবং সেহেরী করে পরের দিন থেকে রোজা রাখা শুরু করবে। 


রোজা রাখলে সঠিক ইফতারের সময়সূচি জানা প্রয়োজন। কারণ ইফতারের সঠিক সময় না জানলে অনেক সময় রোজা ভঙ্গের কারণ হতে পারে। তাই অনেকেই ইফতারের সময়সূচি ২০২৪ সম্পর্কে জানতে চান। ইসলামিক ফাউন্ডেশন কর্তৃক ফাইনাল করা ঢাকার ইফতারের সময়সূচি নিচে উল্লেখ করা হলো। 


রহমতের ১০ দিনের ইফতারের সময়সূচি ২০২৪

১২ই মার্চ - প্রথম রোজা - ইফতারের সময়: ৬.১০ মিনিট।

১৩ই মার্চ - দ্বিতীয় রোজা - ইফতারের সময়: ৬.১০ মিনিট।

১৪ই মার্চ - তৃতীয় রোজা - ইফতারের সময়: ৬.১১ মিনিট।

১৫ই মার্চ - চতুর্থ রোজা - ইফতারের সময়: ৬.১১ মিনিট।

১৬ই মার্চ - পঞ্চম রোজা - ইফতারের সময়: ৬.১২ মিনিট।

১৭ই মার্চ - ষষ্ঠ রোজা - ইফতারের সময়: ৬.১২ মিনিট।

১৮ই মার্চ - সপ্তম রোজা - ইফতারের সময়: ৬.১২ মিনিট।

১৯ই মার্চ - অষ্টম রোজা - ইফতারের সময়: ৬.১৩ মিনিট।

২০ই মার্চ - নবম রোজা - ইফতারের সময়: ৬.১৩ মিনিট।

২১ই মার্চ - দশম রোজা - ইফতারের সময়: ৬.১৩ মিনিট।


মাগফিরাতে ১০ দিনের ইফতারের সময়সূচি ২০২৪

২২ই মার্চ - ১১ রোজা - ইফতারের সময়: ৬.১৪ মিনিট।

২৩ই মার্চ - ১২ রোজা - ইফতারের সময়: ৬.১৪ মিনিট।

২৪ই মার্চ - ১৩ রোজা - ইফতারের সময়: ৬.১৪ মিনিট।

২৫ই মার্চ - ১৪ রোজা - ইফতারের সময়: ৬.১৫ মিনিট।

২৬ই মার্চ - ১৫ রোজা - ইফতারের সময়: ৬.১৫ মিনিট।

২৭ই মার্চ - ১৬ রোজা - ইফতারের সময়: ৬.১৬ মিনিট।

২৮ই মার্চ - ১৭ রোজা - ইফতারের সময়: ৬.১৬ মিনিট।

২৯ই মার্চ - ১৮ রোজা - ইফতারের সময়: ৬.১৭ মিনিট।

৩০ই মার্চ - ১৯ রোজা - ইফতারের সময়: ৬.১৭ মিনিট।

৩১ই মার্চ - ২০ রোজা - ইফতারের সময়: ৬.১৮ মিনিট।


নাজাতের ১০ দিনের ইফতারের সময়সূচি ২০২৪

০১ এপ্রিল - ২১ রোজা - ইফতারের সময়: ৬.১৮ মিনিট।

০২ এপ্রিল - ২২ রোজা - ইফতারের সময়: ৬.১৯ মিনিট।

০৩ এপ্রিল - ২৩ রোজা - ইফতারের সময়: ৬.১৯ মিনিট।

০৪ এপ্রিল - ২৪ রোজা - ইফতারের সময়: ৬.১৯ মিনিট।

০৫ এপ্রিল - ২৫ রোজা - ইফতারের সময়: ৬.২০ মিনিট।

০৬ এপ্রিল - ২৬ রোজা - ইফতারের সময়: ৬.২০ মিনিট।

০৭ এপ্রিল - ২৭ রোজা - ইফতারের সময়: ৬.২১ মিনিট।

০৮ এপ্রিল - ২৮ রোজা - ইফতারের সময়: ৬.২১ মিনিট।

০৯ এপ্রিল - ২৯ রোজা - ইফতারের সময়: ৬.২১ মিনিট।

১০ এপ্রিল - ৩০ রোজা - ইফতারের সময়: ৬.২২ মিনিট।

সেহরির শেষ সময় ২০২৪

রোজা রাখার জন্য সেহরির শেষ সময় সম্পর্কে জানা গুরুত্বপূর্ণ। সঠিক সেহেরির শেষ সময় জানলে সে সময়ের আগে সেহরি খাওয়া শেষ করা যায়। অনেকে আছেন যারা ২০২৪ সালের রোজার সেহেরির শেষ সময় সম্পর্কে জানতে চান। নিচে ঢাকার সেহেরির শেষ সময় দেওয়া হলো। 


রহমতের ১০ দিনের সেহেরির শেষ সময় ২০২৪

১২ই মার্চ - প্রথম রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.৫১ মিনিট।

১৩ই মার্চ - দ্বিতীয় রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.৫০ মিনিট।

১৪ই মার্চ - তৃতীয় রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.৪৯ মিনিট।

১৫ই মার্চ - চতুর্থ রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.৪৮ মিনিট।

১৬ই মার্চ - পঞ্চম রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.৪৭ মিনিট।

১৭ই মার্চ - ষষ্ঠ রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.৪৬ মিনিট।

১৮ই মার্চ - সপ্তম রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.৪৫ মিনিট।

১৯ই মার্চ - অষ্টম রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.৪৪ মিনিট।

২০ই মার্চ - নবম রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.৪৩ মিনিট।

২১ই মার্চ - দশম রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.৪২ মিনিট।


মাগফিরাতে ১০ দিনের সেহেরির শেষ সময়সূচি ২০২৪

২২ই মার্চ - ১১ রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.৪১ মিনিট।

২৩ই মার্চ - ১২ রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.৪০ মিনিট।

২৪ই মার্চ - ১৩ রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.৩৯ মিনিট।

২৫ই মার্চ - ১৪ রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.৩৮ মিনিট।

২৬ই মার্চ - ১৫ রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.৩৬ মিনিট।

২৭ই মার্চ - ১৬ রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.৩৫ মিনিট।

২৮ই মার্চ - ১৭ রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.৩৪ মিনিট।

২৯ই মার্চ - ১৮ রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.৩৩ মিনিট।

৩০ই মার্চ - ১৯ রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.৩১ মিনিট।

৩১ই মার্চ - ২০ রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.৩০ মিনিট।


নাজাতের ১০ দিনের সেহেরির শেষ সময়সূচি ২০২৪

০১ এপ্রিল - ২১ রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.২৯ মিনিট।

০২ এপ্রিল - ২২ রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.২৮ মিনিট।

০৩ এপ্রিল - ২৩ রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.২৭ মিনিট।

০৪ এপ্রিল - ২৪ রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.২৬ মিনিট।

০৫ এপ্রিল - ২৫ রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.২৪ মিনিট।

০৬ এপ্রিল - ২৬ রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.২৪ মিনিট।

০৭ এপ্রিল - ২৭ রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.২৩ মিনিট।

০৮ এপ্রিল - ২৮ রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.২২ মিনিট।

০৯ এপ্রিল - ২৯ রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.২১ মিনিট।

১০ এপ্রিল - ৩০ রোজা - সেহেরির শেষ সময়: ৪.২০ মিনিট

ইসলামিক ফাউন্ডেশন সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি ২০২৪

প্রতিবছর ইসলামিক ফাউন্ডেশন বিভিন্ন তথ্যের উপর ভিত্তি করে রমজানের সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি নির্ধারণ করে থাকে। এই বছর ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি সময়ে ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকে সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি নির্ধারণ করা হয়েছে। নিচে ইসলামিক ফাউন্ডেশন এর সেহেরী ও ইফতারের সময়সূচি পিডিএফ দেওয়া হলো।


পিডিএফ

রোজার নিয়ত বাংলা

অনেকে রোজা রাখার জন্য নিয়ত করতে চান। তাই রোজা রাখার বাংলা নিয়ত কি তা জানতে চাচ্ছেন। আরবি বা বাংলা যে ভাষায় হোক না কেন রোজার নিয়ত যেকোনো ভাষায় করা যায়। নিচে রোজার বাংলা নিয়ত দেওয়া হলো: 


"হে আল্লাহ! আমি আগামীকাল পবিত্র রমজানের রোজা রাখার নিয়ত করছি, যা আপনার সন্তুষ্টির জন্য ফরজ করা হয়েছে। অতএব,আমার পক্ষ থেকে তা কবুল করুন। নিশ্চয়ই আপনি সর্বশ্রোতা ও সর্বজ্ঞ।"

ইফতারের দোয়া বাংলা

ইফতারের পূর্বে দোয়া করলে তা কবুল হয়। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর হাদিস অনুসারে ইফতারের পূর্বের দোয়া সবসময় কবুল করা হয়। নিচে ইফতারের দোয়া বাংলায় দেওয়া হলো: 


"হে আল্লাহ! আমি আপনার উদ্দেশে রোজা রেখেছি এবং আপনার দেওয়া রিজিক দিয়ে ইফতার করছি । আপনি আমার রোজা কবুল করুন।"

তারাবির নামাজের দোয়া

তারাবির নামাজ দুই রাকাত করে পড়তে হয়। দুই রাকাত করে চার রাকাত পড়ার পর অনেকেই অনেক ধরনের দোয়া পাঠ করে থাকেন। তবে সবচেয়ে বেশি প্রচলিত এবং ভালো তারাবির নামাজের দোয়া নিচে উল্লেখ করা হলো।


"সুব্হানাযিল মুলকি ওয়াল মালাকুতি, সুব্হানাযিল ইয্যাতি, ওয়াল আয্মাতি, ওয়াল হাইবাতি, ওয়াল কুদরাতি, ওয়াল কিবরিয়াই, ওয়াল যাবারুত। সুব্হানাল মালিকিল হাইয়্যিল্লাজি লা-ইয়ানামু ওয়ালা ইয়ামুতু আবাদান আবাদা। সুব্বুহুন কুদ্দুছুন রাব্বুনা ওয়া রাব্বুল মালাইকাতি ওয়ার রূহ।”

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url