-->

বয়স্ক ভাতা অনলাইন আবেদন করার সহজ নিয়ম ২০২৪

বয়স্ক ভাতা অনলাইন আবেদন

বয়স্ক ব্যক্তিদেরকে সরকার কর্তৃক যে অনুদান বা সাহায্য ভাতা প্রদান করা হয় তাই বয়স্ক ভাতা নামে পরিচিত। বাংলাদেশের লক্ষ লক্ষ বয়স্ক মানুষ বয়স্ক ভাতা পেয়ে থাকেন। অনেকে আছেন নতুন করে বয়স্ক ভাতা আবেদন করতে চান।

আগে বয়স্ক ভাতা আবেদন করতে হলে অনেক ভোগান্তির শিকার হতে হতো। বর্তমানে যেহেতু সবকিছু ডিজিটাল করা হচ্ছে তাই বয়স্ক ভাতা অনলাইন আবেদন করতে হয়।

আজকের আর্টিকেলে আমরা বয়স্ক ভাতার অনলাইনে আবেদন করার নিয়ম এবং এর সম্পর্কে বিস্তারিত আরও তথ্য আলোচনা করেছি। আপনারা যদি জানতে চান যে কিভাবে বয়স্ক ভাতা অনলাইনে আবেদন করতে হয়।

বয়স্ক ভাতা কি

বাংলাদেশের সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে সমাজ কল্যাণ অধিদপ্তর থেকে বয়স্ক ও গরীব ব্যক্তিদেরকে ভাতা প্রদান করা হয়ে থাকে। ১৯৯৭- ৯৮ অর্থবছর থেকেই বয়স্ক, গরীব এবং দুস্থ ব্যক্তিদের জন্য এই ভাতা প্রদানের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।


বয়স্ক ও গরিব ব্যক্তিদেরকে নিজেদের স্বাস্থ্য ও চিকিৎসার জন্য এবং নিজেদের অন্যান্য প্রয়োজন মেটানোর জন্য সরকার এটি একটি অনুদান হিসেবে দিয়ে থাকে। যেন সকল বয়স্ক ব্যক্তিরা শেষ বয়সে নিজেদের জীবন ভালোভাবে কাটাতে পারে। 

বয়স্ক ভাতা পাওয়ার যোগ্যতা

সবাই বয়স্ক ভাতা পেতে পারে না, যেহেতু এটি একটি অনুদান তাই বয়স্ক ভাতা পেতে হলে আপনাকে অবশ্যই কিছু শর্ত পূরণ করতে হবে। যদি আপনি গরীব এবং দুস্থ না হোন তাহলে বয়স্ক ভাতা পাওয়ার যোগ্য হবেন না।


আবার ভাতা পাওয়ার জন্য যদি আপনার পর্যাপ্ত পরিমাণ বয়স না হয় তাহলেও বয়স্ক ভাতা পাবেন না।  বয়স্ক ভাতা পাওয়ার জন্য আপনাকে নিম্নোক্ত বিষয়গুলো খেয়াল রাখতে হবে।

  • আপনাকে অবশ্যই বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে। 
  • একটি ন্যাশনাল আইডি কার্ড বা জাতীয় পরিচয় পত্র থাকতে হবে।
  • আপনার বছরের গড় আয় ১০ হাজার টাকার কম হতে হবে। 
  • পুরুষদের ক্ষেত্রে ন্যাশনাল আইডি কার্ডের বয়স অনুযায়ী ৬৫ বছর পূর্ণ হতে হবে। 
  • নারীদের ক্ষেত্রে ন্যাশনাল আইডি কার্ডের বয়স অনুযায়ী ৬২ বছর পূর্ণ হতে হবে।
  • সরকারি কোন চাকরি অথবা অন্য কোন ভাতা পেয়ে থাকলে তিনি অযোগ্য বলে বিবেচিত হবেন।

উপরোক্ত এই সকল যোগ্যতাগুলো যদি আপনার থাকে তাহলে আপনি বয়স্ক ভাতা পাওয়ার যোগ্য হবে এবং ভাতার জন্য আবেদন করতে পারবেন। 

বয়স্ক ভাতা মাসে কত টাকা

অনেকেই জানেন না যে বয়স্ক ভাতা মাসে কত টাকা প্রদান করা হয়। প্রতিমাসে বয়স্ক ভাতা ৫০০ টাকা প্রদান করা হয়। প্রতি তিন মাসে একবার টাকা প্রদান করা হয়।


  • বর্তমানে বয়স্ক ভাতা প্রতি মাসে ৬০০ টাকা করে দেওয়া হচ্ছে


অর্থাৎ প্রতি তিন মাসে ১৮০০ টাকা করে বয়স্ক ভাতা প্রদান করা হচ্ছে। ২০২৩-২৪ অর্থবছরে এই বয়স্ক ভাতা টাকার পরিমাণ ১০০ টাকা বৃদ্ধি করা হয়েছে। অর্থাৎ ৫০০ টাকা থেকে ৬০০ টাকা করা হয়েছে।

বয়স্ক ভাতা অনলাইন আবেদন করার নিয়ম

বর্তমানে বাংলাদেশে প্রায় ৫৮ লাখের বেশি মানুষ বয়স্ক ভাতা পেয়ে থাকেন। আরো অনেক অনেক লোক বয়স্ক বা তার জন্য আবেদন করতে চাইছেন। বর্তমান যেহেতু ডিজিটাল এই সব কিছু করা হয় তাই বয়স্ক ভাতার আবেদন অনলাইনে করতে হয়।


অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন করতে হলে অবশ্যই কিছু নিয়মকানুন মেনে করতে হবে। আগে ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে ইউনিয়ন পরিষদে ফরম ফিলাপ করে আবেদন করতে হতো। তবে বর্তমানে সমাজকল্যাণ অধিদপ্তরের ওয়েবসাইট থেকে যে কেউ সরাসরি বয়স্ক ভাতার অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন।

বয়স্ক ভাতা অনলাইনে আবেদন করার ধাপসমূহ

ধাপ- ১: প্রথমে ইন্টারনেট কানেক্টেড আছে এমন মোবাইল অথবা কম্পিউটারের একটি ব্রাউজার ওপেন করে সমাজ কল্যাণ অধিদপ্তরের ভাতা আবেদনের ওয়েবসাইটটিতে প্রবেশ করুন। 


ওয়েবসাইট লিংক: http://mis.bhata.gov.bd/onlineApplication


ধাপ-২: এই লিংকটিতে প্রবেশ করলে সমাজ কল্যাণ অধিদপ্তরের ভাতা আবেদনের কার্যক্রমটি সিলেক্ট করুন। অর্থাৎ আপনি কোন ধরনের ভাতা নিতে চাচ্ছেন সেটি সিলেক্ট করুন। 


ধাপ-৩: এরপর যার জন্যে আবেদন করবেন তার জাতীয় পরিচয় পত্রের নম্বর এবং জন্ম তারিখ দিয়ে যাচাই করুন বাটনে ক্লিক করুন। 


ধাপ-৪: উনি যদি বয়স্ক ভাতার জন্য সিলেক্ট হয় তাহলে নাম এবং অন্যান্য তথ্য সহ কিছু ফর্ম অটোমেটিক ফিলাপ হয়ে যাবে। 


নোট: যে তথ্যগুলো অটোমেটিক ফিলাপ হবে না সেগুলো ম্যানুয়ালি ফিলাপ করে ফেলুন। 


ধাপ-৫: পরবর্তী ধাপে আরেকটি ফর্মে যার জন্য আবেদন করবেন তার আরো কিছু তথ্য ফিলাপ করতে হবে। যেমন শিক্ষাগত যোগ্যতা, বার্ষিক আয়, বৈবাহিক অবস্থা, সম্পদের পরিমাণ ইত্যাদি। 


ধাপ-৬: পরবর্তী ধাপে টাকা নেওয়ার জন্য একটি মোবাইল ব্যাংকিং নাম্বার যেমন বিকাশ অথবা নগদ নাম্বার প্রদান করতে হবে। 


ধাপ-৭: পরবর্তী ধাপটিতে আবেদনের যোগ্যতা সম্পর্কে আরো কিছু তথ্য দিতে হবে সেগুলো সঠিকভাবে দিয়ে ফিলাপ করে ফেলুন। মনে রাখবেন সবগুলো তথ্যই ভালোভাবে দেখে শুনে দিবেন, কারণ একবার আবেদন করার পর তা এডিট করার আর কোন অপশন থাকবে না। 


শেষ ধাপ: সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে সংরক্ষণ বাটনে ক্লিক করে আবেদনটি সম্পন্ন করুন। এরপর আবেদনের pdf টি ডাউনলোড করে প্রিন্ট করে নিন। এরপর চেয়ারম্যান অথবা মেয়রের স্বাক্ষর নিয়ে আপনার ইউনিয়ন পরিষদে অথবা সমাজসেবা অধিদপ্তরের অফিসে জমা দিন। 

বয়স্ক ভাতার টাকা দেখার নিয়ম

অনেকে আছেন যারা বয়স্ক ভাতা পান কিন্তু নিজেদের ব্যালেন্স কত আছে তা জানতে পারেন না। ভাতার আবেদন করার সময় যদি আপনারা বিকাশ অথবা নগদ একাউন্ট ব্যবহার করে থাকেন তাহলে খুব সহজেই বিকাশ এবং নগদের মাধ্যমে বয়স্ক ভাতার টাকা দেখতে পারবেন।


আবার যদি কোন ব্যাংক অ্যাকাউন্ট যুক্ত করে থাকেন তাহলে ব্যাংকের কাছে কল দিয়ে নিজের ব্যালেন্স সম্পর্কে জানতে পারবেন। বয়স্ক ভাতা টাকা যদি ব্যাংকে আসে তাহলে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ব্যাংক এশিয়াতে আসে। এবং যখন টাকা আসে তখন এসএমএস এর মাধ্যমে আপনার মোবাইল নাম্বারে আপনার ব্যালেন্স জানিয়ে দেওয়া হয়। 

সমাজসেবা অধিদপ্তর ভাতা আবেদন

সমাজসেবা অধিদপ্তর বাংলাদেশ সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের একটি অংশ। এর সাহায্যে মানুষ বিভিন্ন ধরনের ভাতা পেয়ে থাকে। প্রতিবন্ধী ভাতা,  বিধবা ভাতা, বয়স্ক ভাতা ইত্যাদি ধরনের ভাতা সমাজসেবা অধিদপ্তর দিয়ে থাকে। আগে ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে সমাজসেবা অধিদপ্তরে ফরম পূরণ করে ভাতার আবেদন করতে হতো।


তবে বর্তমানে ডিজিটাল পদ্ধতিতে অনলাইনের মাধ্যমে সমাজসেবা অধিদপ্তরে যে কোন ভাতার আবেদন করা যায়। সমাজসেবা অধিদপ্তরের নিজস্ব ওয়েবসাইট থেকে সব ধরনের ভাতা আবেদন করা যায়। তাদের ওয়েবসাইটের ঠিকানা  https://mis.bhata.gov.bd/onlineApplication

বয়স্ক ভাতা নিয়ে কিছু FAQ

বয়স্ক ভাতা আবেদন করতে কি কি লাগে?

বয়স্ক ভাতা আবেদন করার জন্য সাধারণত যার জন্য আবেদন করা হবে তার পাসপোর্ট সাইজের ছবি এবং ন্যাশনাল আইডি কার্ড এর প্রয়োজন হবে। এছাড়া যারা আবেদন তার বিভিন্ন ধরনের তথ্য ফরমে ফিলাপ করতে হবে। 


কত বছর বয়স হলে বয়স্ক ভাতা পাওয়া যায়?

পুরুষদের ক্ষেত্রে সাধারণত জাতীয় পরিচয় পত্রের বয়স অনুযায়ী ৬৫ বছর এবং মহিলাদের ক্ষেত্রে ৬২ বছর বয়স হলে বয়স্ক ভাতা পাওয়া যায়। 


বাংলাদেশে কখন থেকে বয়স্ক ভাতা চালু হয়?

১৯৯৭-৯৮ অর্থবছর থেকে বাংলাদেশের প্রতিটি ইউনিয়নের ১০ জন বয়স্ক ও গরীব মানুষ করে প্রতি মাসে ১০০ টাকা হারে বয়স্ক ভাতা বিতরণ করা শুরু হয়। 

উপসংহার

আজকে আমরা বয়স্ক ভাতা অনলাইনে আবেদন নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। আমাদের এই সবগুলো তথ্য ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে। যদিও আমরা সব সময় সঠিক এবং নির্ভুল তথ্য দেওয়ার চেষ্টা করি। তবে সমাজ সেবা অধিদপ্তর যেকোনো সময় তাদের ভাতা আবেদন সিস্টেম পরিবর্তন করতে পারে।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url